সারাদেশ

মানিকগঞ্জের হরিরামপুরে তরুণীর আত্মহত্যা

 নিজস্ব প্রতিবেদক, মানিকগঞ্জ :

মানিকগঞ্জ জেলার হরিরামপুর উপজেলার বাল্লা ইউনিয়নের বাল্লা গ্রামের এক তরুণীর বিয়ে ভেঙে যাওয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। বুধবার (২৮এপ্রিল) সকালে ইজান নবীর মেয়ে ফুলু (২০) নিজ ঘরের বাঁশের আরার মধ্যে ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। ফুলু’র পিতা-মাতা পেশায় দিনমজুর। ফুলু’রা দুই ভাই এক বোন ফুলুই সবার বড়।

নিহতের মা মঞ্জু বেগম জানান , উপজেলার বাল্লা ইউনিয়নের ঝিটকা নতুন পাড়া এলাকার মো. কালাম এর পুত্র ট্রাক চালক সুমনের সাথে চার বছর আগে বিয়ে ঠিক হয় ফুলু’র। পড়ে বিয়েটি ভেঙ্গে যায়। এরপর গত ছয়মাস আগে সুমনের সাথে প্রেমের সম্পর্ক হয় ফুলু’র। এরপর আবারো বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে যায় মেয়ের পরিবার কিন্তু বিয়ের কথা কিছুটা এগোলেও ছেলের পরিবার আবারো তা ভেঙে দেয়। তবে গোপনে চলতে থাকে তাদের প্রেমের সম্পর্ক। সেই সম্পর্কের কারণে গত সোমবার (২৬এপ্রিল) সকালে ফুলু গিয়ে উঠেন সুমনদের বাড়িতে থাকেন সন্ধ্যা পর্যন্ত।

পরে সুমনের বাসা থেকে মেয়ের পরিবারকে স্থানীয় গণ্যমান্যদের নিয়ে যেতে বলেন। সেখানে গেলে উভয় পরিবার বৃহস্পতিবার (২৯এপ্রিল) তাদের বিয়ের দিন ধার্য্য করে। তবে সুমন এই বিয়েতে অসম্মতি জানান।

এমতাবস্থায় সুমনের সাথে ফুলু’র বাকবিতণ্ডা সৃষ্টি হয় ও ফুলুকে নিয়ে তার পরিবার বাসায় চলে আসে।

আজ সকাল ৮টায় ফুলু ও তার ছোট ভাইকে বাসায় রেখে বাবা, মা ও এক ভাই কাজে বের হন। ছোট ভাই খেয়ে, খেলতে বাইরে গেলে কিছুক্ষণের মধ্যেই সে ঘরের আরায় ওড়না পেচিয়ে ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করেন। কিছুক্ষণের মধ্যেই খেলা শেষে ছোট ভাই বাসায় ফিরে তাকে ঝুলতে দেখে চিৎকার দেয়। তার চিৎকার শুনে বাড়ির পাশের লোকজন এগিয়ে এসে পরিবার ও পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে লাশ নামান ও লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

এদিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন সিঙ্গাইর- হরিরামপুর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মোহা. রেজাউল হক।

এবিষয়ে হরিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুঈদ চৌধুরী জানান, ‘ফাঁসি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে, রিপোর্ট পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ এছাড়া এবিষয়ে অপমৃত্যু মামলা হয়েছে বলেও জানান তিনি।